বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি ও কি কি জানুন বিস্তারিত সমূহঃ

বাংলাদেশী হিসাবে আমাদের নিজের দেশ সম্পর্কে জানতে হবে কিন্তু আমরা সবসময়ই এই বিষয়টি নিয়ে বেশ হেয়ালি করি। আমরা অন্যদেশের ব্যপারে জানতে বেশ আগ্রহ দেখায় যা আমাদের নিজের দেশের জন্য দেখায় না। বিষয়টি অবশ্যই দুঃখজনক। তবে হতাশার কিছুই নেই, আজ থেকেই নিজের দেশ সম্পর্কে জানতে শুরু করুন। শুরুটা বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি ও কি কি এইটি জানা দিয়েই করে ফেলুন এখন থেকেই। 

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশ বিভাগকে ঘিরে অনেক বিতর্ক হয়েছে। ছোটবেলা থেকেই আমরা শুনে আসছি বাংলাদেশ ছয়টি প্রদেশে বিভক্ত। তবে বাংলাদেশের বিভাজন এখন আরও বেড়েছে।

ভাষা আন্দোলনের সময় বাংলাদেশের মাত্র তিনটি বিভাগ ছিল। বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চলের তিনটি বিভাগের নাম ঢাকা, চট্টগ্রাম ও রাজশাহী। যাইহোক, সময়ের সাথে সাথে বাংলাদেশ বিভাগের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এরপর ১৯৫৪ সালে এবং ১৯৬০ সালে যথাক্রমে সিলেট বিভাগ ও খুলনা বিভাগ গঠন করা হয়। এরপর, 1993 সালে, খুলনা বিভাগ থেকে বারি ভাল বিভাগ গঠিত হয় এবং সেই অনুযায়ী, বাংলাদেশের রংপুর ও দিনাজপুর অঞ্চল নিয়ে রংপুর বিভাগ তৈরি করা হয় যা আগে রাজশাহী বিভাগের অধীনে ছিল।

এটিও উল্লেখ করার মতো যে ময়মনসিংহ বিভাগটি 2015 সালে ঢাকা বিভাগের পশ্চিম অংশ ভেঙে গঠিত হওয়ার পরে বাংলাদেশের সর্বশেষ বিভাগ হয়ে ওঠে। এটি বাংলাদেশের সর্বশেষ বিভাগ। সংসদে উত্থাপিত আরও দুটি বিভাগ তৈরির প্রস্তাব রয়েছে। তারা হলো মেঘনা (কুমিল্লা) বিভাগ ও পদ্মা বিভাগ। তাদের কী নাম দেওয়া হবে সে বিষয়ে এখনও স্পষ্ট কোনো ধারণা নেই। এই দুইটি আসলেও বিভাগ হবে কিনা তা এখনো নিশ্চত নয়। আপাতত আমরা এই ৮টি বিভাগ সম্পর্কে জেনে আসি চলুন।

বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি কি কি এবং সেই বিভাগের বিস্তারিত সমূহঃ 

বাংলাদেশের বিভাগ মোট ৮ টি। প্রত্যেক বিভাগ রয়েছে তার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য ও অন্যান্য গুনাগুন এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। তো চলুন জেনে আসি এই বিভাগ গুলোর বিস্তারিতঃ

ঢাকা বিভাগ

বাংলাদেশের কেন্দ্রবিন্দু, যা ঢাকা নামে পরিচিত, বাংলাদেশের রাজধানী বা কেন্দ্র। ১৬১০ সালে বুধীগঙ্গার তীরে ঢাকা শহর প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ১৮২৬ সালে ঢাকা বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিভাগের মোট আয়তন ৩১,০৫১ বর্গকিলোমিটার।

ঢাকা বিভাগের ১৩টি জেলার মধ্যে সবচেয়ে বড় জেলা টাঙ্গাইল। এটি দেশের বৃহত্তম জেলাগুলির মধ্যে একটি।

ঢাকাকে অবশ্য বাংলাদেশেরমেগাসিটিহিসেবে উল্লেখ করা হয়, অর্থাৎ কোনো অঞ্চল বা এলাকায় বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা এক কোটির বেশি হলে সেই অঞ্চল বা এলাকাকে মেগাসিটি হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

ঢাকা বিশ্বের অন্যতম জনবহুল শহর। এটি এক কোটিরও বেশি মানুষের বাসস্থান। প্রকৃতপক্ষে, বর্তমানে সারা বিশ্বে ২৬ টি মেগাসিটি রয়েছে এবং ঢাকা ১১ তম বৃহত্তম।

চট্টগ্রাম বিভাগ

বাংলাদেশের দক্ষিণপূর্ব অঞ্চলে, চট্টগ্রাম বিভাগ দ্বিতীয় বৃহত্তম বিভাগ। এটি বাংলাদেশের বৃহত্তম বন্দরের আবাসস্থল। ১৬৬৬ সালে চট্টগ্রাম জেলা সৃষ্টি হয়। ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগ ১৮২৯ সালে সৃষ্টি হয়।

১৯৯৫ সালের আগে চট্টগ্রাম বিভাগে বাংলাদেশের সিলেট বিভাগও অন্তর্ভুক্ত ছিল। চট্টগ্রাম বিভাগের মোট আয়তন প্রায় ৩৪,৫২৯.৯৭ বর্গ কিলোমিটার। চট্টগ্রাম বিভাগে ১১টি জেলা ও ৯৯টি উপজেলা রয়েছে।

বান্দরবান, খাগদাছড়ি ও রাঙ্গামাটি ছাড়াও চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে তিনটি পার্বত্য জেলা রয়েছে যেগুলোকেপার্বত্য চট্টগ্রামবলা হয়। 

চট্টগ্রামকে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে বিবেচনা করার একটি কারণ রয়েছে। কারণ এটি আমাদের দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর। আমাদের দেশের অধিকাংশ বৈদেশিক বাণিজ্য, আমদানিরপ্তানি চট্টগ্রাম বন্দর দিয়েই হয়।

চট্টগ্রামের কেন্দ্রস্থলে অনেক ভারী শিল্প, পোশাক কারখানা রয়েছে, যা এটিকে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক রাজধানীতে পরিণত করেছে। তাই চট্টগ্রামকে বাংলাদেশের লৌহ রাজধানীও বলা হয়। এইটি বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর বিভাগ ধরা হয়। যার কারনে বহু বাংলাদেশিরাই এইখানে পারি জমায় প্রর্কিতি উপভোগ করতে। 

রাজশাহী বিভাগ

বাংলাদেশে, রাজশাহী বিভাগ তৃতীয় বৃহত্তম বিভাগ। এটি আনুমানিক ১৮,১৫৪ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে, এটিকে দেশের ৩য় বৃহত্তম বিভাগ করে তুলেছে। রাজশাহী জেলায় একটি বিভাগ রয়েছে যা ১৯৪৭ সালে গঠিত হয়েছিল এবং একটি জেলা ১৭৭২ সালে তৈরি হয়েছিল।

আমাদের রাজকীয় বিভাগের একটি শহর রাজশাহীতে, রেশম শুধুমাত্র তার গুণমানের জন্য বিখ্যাত নয় এর রূপের জন্যেও বিখ্যাত। এটি রাজশাহীর আম, খেজুরের গুড়, সিল্ক শাড়ি এবং চমচমের জন্যও বিখ্যাত। রাজশাহীকে সব সময়ই শান্তির শহর বলে মনে করা হতো। এই শহরের মানুষ শান্তি পূরণ ধরা হয়। 

খুলনা বিভাগ 

বাংলাদেশের ৪টি বিভাগের মধ্যে খুলনা বিভাগ হচ্ছে চতুর্থ বিভাগ। খুলনা বিভাগ বাংলাদেশের দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থিত এবং এটি দেশের মধ্যে চতুর্থ বিভাগ।

পূর্বে, খুলনা বিভাগ ছিল রাজশাহী বিভাগের অংশ এবং বরিশাল বিভাগ ছিল ঢাকা বিভাগের অংশ।

১৯৬০ সালে পূর্ব রাজশাহী বিভাগকুষ্টিয়া, খুলনা ও যশোরএবং পূর্ব ঢাকা বিভাগফরিদপুর ও বরইবালএকত্রিত করে খুলনা বিভাগ তৈরি করা হয়। তবে খুলনা জেলা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৮২ সালে।

আনুমানিক ২২,২৮৫ বর্গকিলোমিটার জমির হিসাব খুলনা বিভাগের, যা ১০ টি জেলা এবং ৫৯ টি উপজেলায় বিভক্ত। 

বরিশাল বিভাগ

জনসংখ্যার দিক থেকে বরিয়াল বিভাগ বাংলাদেশের ৫ তম জনবহুল বিভাগ। বরিয়াল জনগণ তাদের আঞ্চলিক ভাষার জন্য বিখ্যাত হলেও সকলের মাতৃভাষা সম্মানিত। এই বিভাগটি ঢাকা ও খুলনা বিভাগের অংশ ছিল।

 ঢাকা ও খুলনা বিভাগকে ১৯৯৩ সালে বরিশাল ও খুলনা বিভাগে বিভক্ত করা হয়। আজকের হিসাবে, বিভাগটিতে ছয়টি জেলা এবং দশটি উপজেলা রয়েছে যার মোট আয়তন ১৩,৬৪৪ বর্গকিলোমিটার।

এটি বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলে, সমুদ্রের কাছে অবস্থিত এবং বারিবাগ বিভাগের প্রতিটি জেলায় প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর। জেলাটি তার সুস্বাদু আইরিশ মাছের জন্যও বিখ্যাত। আশেপাশের সমুদ্রের ঘনিষ্ঠ দৃশ্যের জন্য পার্শ্ববর্তী সৈকত দেখুন।

সিলেট বিভাগ

বাংলাদেশের সিলেট বিভাগ দেশের ৬ষ্ঠ বৃহত্তম বিভাগ এবং দেশের উত্তরে অবস্থানের কারণে উত্তরাঞ্চল নামেও পরিচিত।

১৯৯৫ সালের হিসাবে, চারটি জেলা নিয়ে সিলেট বিভাগ গঠিত হয়েছিল। অনেকে সিলেটকে দ্বিতীয় লন্ডন বলে থাকেন আবার অনেকে একে মাজার শরীফের দেশ বলে থাকেন। বিভাগের মোট আয়তন প্রায় ১২,৫৮৯ বর্গ কিলোমিটার। এইটিও একটি পর্যটণ ক্রেন্দিক বিভাগ। কারন এইটিও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর।

সিলেট বিভাগ দর্শনীয় স্থান আছে। যেমনশ্রীমঙ্গল চাবাগান, জাফলং,, মাধবকুণ্ড ইত্যাদি। সিলেট জেলা বাংলাদেশের জিডিপিতে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখে। বাংলাদেশের মোট অর্থনীতির প্রায় ২৩% জেলা থেকে উদ্ভূত হয়। চট্রগামে যেমন সুমদ্রের সমাহার। সিলেট তেমন পাহাড়ের সমাহার। আপনি প্রকৃতির মাঝে হারাতে চালাই সিলেট বিভাগ থেকে ঘুরে আসতে পারেন।

রংপুর বিভাগ

বাংলাদেশের এই সপ্তম বিভাগকে রংপুর বিভাগ বলা হয়। রংপুর বিভাগ ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এটি 8টি জেলা এবং ৫৮ টি উপজেলা নিয়ে গঠিত। রংপুর বিভাগের মোট আয়তন প্রায় ১৬,৩১৭ বর্গ কিমি। রংপুর বেশিরভাগই তামাক, ইকাশা, খাদি বাহাঙ্গা আম এবং অন্যান্য কৃষি পণ্যের জন্য পরিচিত।

ময়মনসিংহ বিভাগ

২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠিত একটি বিভাগ, ময়মনসিংহ বাংলাদেশের সর্বশেষ এবং অষ্টম বিভাগ। ময়মনসিংহ বিভাগ ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

এটি সারা বিশ্ব থেকে প্রভাষকদের প্রশংসা আকর্ষণ করেছিল এবং কর্মীরা তাদের পরিচালনা করতে সক্ষম হয়েছিল। ময়মনসিংহ মোট ৪ টি জেলা ও ৩৪ টি উপজেলা নিয়ে গঠিত। 

পরিশেষে

আশা করছি আমাদের এই আর্টিকেল পরে আপনি বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি ও কি কি জানতে ও বুঝতে পারছেন। তবে শুধু এইটুকু জ্ঞানেই সিমাবন্ধ থাকবেন না। নিজ দেশ সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের বিকল্প নেই। তাই যখনই দেশের সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন মনে আসলে জানার জন্যে রির্সাচ করবেন।

জেনে নিন নারায়ণগঞ্জ কেনো বিখ্যাত?

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button