কিটো গ্রীন কফি কি এবং এর উপকারীতা

কিটো গ্রীন কফি: একটি স্বাস্থ্যকর পানীয়

আপনি কি কেটো ডায়েটের সাথে পরিচিত? কেটো ডায়েটের মাধ্যমে আপনি আপনার শরীরের বিশেষ যত্ন নিতে পারবেন। ঠিক তেমনি ভাবে কিটো গ্রীন কফি হলো এমন একটি স্বাস্থ্যকর পানীয় যা আপনার স্বাস্থ্যের ডায়েটের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে ভূমিকা রাখবে। এটি আপনার শরীরের কেটোসিস নামক অবস্থার উন্নতি ঘটাতে সাহায্য করবে। 

তাহলে চলুন জেনে নেই কেটো গ্রীণ কফি কি এবং এর উপকারীতাসহ আপনার স্বাস্থ্যের জন্য কোনো ক্ষতি হবে কিনা বিস্তারিত সহ এর তৈরি পদ্ধতি এবং দাম!

কেটো ডায়েট কি?

কিটো গ্রীন কফি কি জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই আগে জানতে হবে কেটো ডায়েট কি। হয়তো অনেকেই কেটো ডায়েট সম্পর্কে শুনেছেন আবার অনেকে শুনেনি। তবে শুনে থাকলেও মূলত কেটো ডায়েট কি এবং কিভাবে কাজ করে তার স্পষ্ট ধারনা নেই। 

কেটো ডায়েট একটি আহার পদ্ধতি, যেখানে আপনি অত্যন্ত কম কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ করবেন এবং প্রধানভাবে চর্বি এবং প্রোটিন গ্রহণ করবেন। অর্থাৎ এটি আপনার ওজন কমাতে যেমন সাহায্য করবে ঠিক তেমনি পাচন প্রক্রিয়ায় সাহায্য করবে। তবে কেটো ডায়েট গ্রহণ করার পূর্বে অবশ্যই ডাক্তার পরামর্শ নেয়া উচিত। 

কোলেস্টেরল লক্ষণ ওঝুঁকি এড়াতে যা যা জানতে হবে

 

কিটো গ্রীন কফি

এবার আসুন কেটো গ্রীণ কফি সম্পর্কে জানি। কফি খেলে কি ওজন কমতে পারে? হ্যাঁ, অবশ্যই পারে। তবে যদি আপনি কেটো গ্রীণ কফি খান তবেই তা আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে। কেটো গ্রীণ কফি মূলত কেটো ডায়েটের একটি অংশ। অর্থাৎ কেটো গ্রীণ কফিও আপনাকে ওজন কমাতে সাহায্য করবে। 

কেটো গ্রীণ কফি হলো এমন একটি বিশেষ প্রকারের পানীয় বা কফি যা কেটো ডায়েট অবলম্বনকারীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়। এটি মূলত শরীরে কেটোসিস নামক অবস্থার উৎপন্ন করতে পারে ফলে শরীরে চর্বি কমায় এবং ওজন কমাতে সাহায্য করে। কেটো গ্রীণ কফি কার্বোহাইড্রেটের স্থানে অধিক চর্বি এবং এ্যামিনো এসিডের সহায়তায় তৈরি করা হয়। কেটো গ্রীন কফি মূলত কফি বীনস থেকে তৈরি হয়। ফলে এটিতে ক্যাফফিনের উপস্থিতি থাকে যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। 

কিটো গ্রীন কফির উপকারিতা 

কেটো গ্রীণ কফি শুধু ওজন কমাতে সাহায্য করে না৷ পাশাপাশি আরও বিভিন্ন উপকার করে স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও এর ভূমিকা অপরিসীম। কেটো গ্রীণ কফির রয়েছে বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য উপকারিতা। যেমন:

. ওজন কমাতে সাহায্য করে

কফি খাওয়া অনেকেই ওজন কমানোর সহায়ক হিসেবে বেছে নেয়। কেটো গ্রীন কফিতে মূলত ক্যাফেইন সাধারনত থার্মোজেনেসিসকে উদ্দীপ্ত করে ফলে শরীর থাকে সতেজ ও শক্তি যোগায়। 

তাছাড়াও কেটো গ্রীণ কফি পান করলে খাওয়ার আকাঙ্খা কিছুটা হ্রাস পায়। ফলে আপনি স্বাভাবিকভাবেই খাবারের মাধ্যমে অতিরিক্ত ক্যালরি গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকবেন। যার ফলে শরীরের মেদ কমে ওজন হ্রাস পাবে।

. উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে

উচ্চ রক্তচাপ কমাতে কেটো গ্রীণ কফিতে থাকা ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড বিশেষ ভূমিকা পালন করে৷ ফলে উচ্চরক্তচাপ কমিয়ে রক্তনালীর কার্যকরীতা বৃদ্ধি করতেও সাহায্য করে।

. বহুমূত্র বা ডায়াবেটিস কমাতে সাহায্য করে

কিটো গ্রীন কফি আপনার শরীরের ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা, সামগ্রিক লিপিড এবং গ্লুকোজের মাত্রা কমিয়ে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও ভূমিকা রাখতে পারে। এছাড়াও এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমৃদ্ধ ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড ইনসুলিনের কার্য ক্ষমতা উন্নত করতে সাহায্য করে। ফলে আপনি একটি সুস্থ জীবন পেতে পারেন।

. শরীরের কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে

কেটো গ্রীণ কফিতে থাকা কফি বীজের নির্যাস আপনার শরীরের কোলেস্টেরল কমাতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করতে পারে। 

কেটো গ্রীণ কফি ডেনসিটি লিপোপ্রোটিন বা ভাল কোলেস্টেরল বৃদ্ধি করে এবং লোডেনসিটি লিপোপ্রোটিন বা খারাপ কোলেস্টেরলের কমাতে সাহায্য করে। 

. শরীরের শক্তি বৃদ্ধিতে ভূমিকা 

কেটো গ্রীণ কফিতে থাকা ক্যাফেইন শরীরে শক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে থাকে। এছাড়াও কফিতে থাকা ক্লোরোজেনিক এসিড মন প্রফুল্ল রাখতে ও মস্তিষ্কের কার্য ক্ষমতা বৃদ্ধি করে মনোযোগ বজায় রাখতে সাহায্য করে। এতে করে কাজের মাঝে আপনি শক্তি হারাবেন না এবং সর্বদা প্রফুল্লচিত্তে থাকবেন। 

. শরীরের ত্বক ভালো রাখে ও তারুন্য বজায় রাখতে সাহায্য করে

কেটো গ্রীণ কফিতে রয়েছে কফি বীজের নির্যাস। যা সর্বদা শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে সহায়তা করে। ফলে ত্বক থাকে সর্বদা হাইড্রেটেড। এছাড়াও ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড ত্বককে রুক্ষ শুষ্ক হওয়া থেকে রক্ষা করে। ফলে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান ত্বকে সঠিকভাবে পৌছায়, এবং ত্বক হয় মসৃন আর সুগঠিত। 

তাছাড়াও কেটো গ্রীণ কফি পান করার ফলে আপনার ত্বক সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি থেকে রক্ষা পেতে পারে এবং আপনার তারুণ্য ধরে রাখতেও সাহায্য করে। কারন এতে থাকা  ক্লোরোজেনিক অ্যাসিডএর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যগুলো আপনার শরীরকে বার্ধক্য প্রক্রিয়ার জন্য দায়ী ফ্রির‍্যাডিকেলগুলো দূর করতে সহায়তা। ফলে দীর্ঘদিন তারুণ্য ধরে রাখা সম্ভব হয়।

কিভাবে তৈরি করবেন কেটো গ্রীণ কফি? 

বাজারে বিভিন্ন রকমের কেটো গ্রীণ কফি আজকাল কিনতে পাওয়া যাচ্ছে। আপনি চাইলে তা কিনেও বাড়িতে রাখতে পারেন। তবে সবথেকে ভালো হয় যদি আপনি স্বাস্থ্যসম্মতভাবে নিজেই বাড়িতে তৈরি করতে পারেন। কেটো গ্রীণ কফি তৈরি সহজ হলেও আপনাকে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসরন করে তবেই এই কফি মিশ্রণ তৈরি করতে হবে। 

কেটো গ্রীণ কফি তৈরি করতে প্রথমেই আপনাকে ৩০০ গ্রাম পানিতে ২০ গ্রাম এই সবুজ কফির দানা দিয়ে ভালোভাবে ফোটাতে হবে। তবে আগের রাতে যদি কফির দানাগুলো ভিজিয়ে রাখতে পারেন তবে বেশি ভালো হয়। তার পরের দিন সেই কফি দানাগুলো নিয়ে ছেঁকে পানি ঝরিয়ে ফুটালে ভালো ফলাফল পাবেন। ভালো ভাবে ফুটানোর জন্য টানা ৫ থেকে ১০ মিনিট পানিসহ কফি বীজ ফুটতে দিন। এবার ওর সঙ্গে মধু আর দারচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। ব্যাস, তৈরি হয়ে গেলো আপনার স্বাস্থ্যসম্মত কেটো গ্রীণ কফি। 

ভালো ফলাফল পেতে প্রতিদিন সকালে শরীরচর্চার পরে খালি পেটে এই কেটো গ্রীণ কফি পান করুন। তবে মনে রাখবেন। অবশ্যই কফি পান করার ১০ মিনিটের মধ্যে অন্য কিছু খাবেন। নতুবা অসুস্থ হয়ে পরার সম্ভাবনা থাকতে পারে। 

কেটো গ্রীণ কফির অপকারিতা 

কেটো গ্রীণ কফি যেমন আপনার উপকার করতে পারে ঠিক তেমনি এর ভুল ব্যবহার বা অতিরিক্ত পান করাও আপনাকে চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে পারে। 

কেটো গ্রীণ কফিতে থাকা ক্যাফেইন আপনার শরীরের শর্করার মাত্রা অতিরিক্ত কমিয়ে দিতে পারে। ফলে অতিরিক্ত ওজন কমে যেতে পারে। এছাড়াও অনিয়মিত ব্যবহার রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা অস্বাভাবিক হারে কমিয়ে দিতে পারে। তাই অবশ্যই পরিমিত ও নিয়মিত হারে কেটো গ্রীণ কফি পান করুন। আপনার জন্য প্রযোজ্য মাত্রায়ই কেবল কেটো গ্রীণ কফি পান করুন। এজন্য অবশ্যই আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। 

কিটো গ্রীন কফির দাম কেমন?

কিটো গ্রীন কফির দাম মূলত বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। তবে এর গুনগত মানের উপরও এর দাম নির্ভরশীল। তবে বাজার মূল্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায় আপনি সর্বনিম্ন ৭০০ থেকে ২০০০ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত কেটো গ্রীণ কফি। তবে কেনার আগে অবশ্যই এর গুনগতমান যাচাই করে নিতে ভুলবেন না যেন।

উপসংহার 

কিটো গ্রীন কফি মূলত ক্যাফিন এবং গ্রীন কফি বীনসের সংমিশ্রণ, যা গ্রহনের ফলে শরীরের ওজন হ্রাস পায় এবং বিভিন্ন সমস্যা দূর করে। তবে কেটো গ্রীণ কফি পান করার বিশেষ নিয়ম আছে যা আপনাকে অবশ্যই আগে জেনে নিতে হবে। তবে কেটো ডায়েট বা কেটো গ্রীণ কফি পান করার ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নিলে সবচেয়ে ভালো হয়। উল্লেখ্য যে, কেটো গ্রীণ কফির অতিরিক্ত পান আপনার শারীরিক সমস্যার কারনও হতে পারে। 

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button