জেনে নিন ওবায়দুল কাদের জীবনী

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবার ও আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন

ওবায়দুল কাদেরে জীবনী

১৯৫২ সালের পয়লা জানুয়ারি নোয়াখালী জেলার কোম্পানিগঞ্জ থানার বড়রাজপুর গ্রামে ওবায়দুল কাদেরের জন্ম। তার পিতা মোশাররফ হোসেন ছিলেন একজন সরকারি চাকুরীজীবী। যদিও জনশিক্ষার স্বার্থে সরকারি চাকুরী ছেড়ে তিনি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। 

ওবায়দুল কাদের বসুরহাট সরকারি উচ্চবিদ্যালয় হতে প্রথম বিভাগে মেট্রিক পাস করেন। এছাড়া, নোয়াখালী সরকারি কলেজ হতে মেধা তালিকায় প্রথমস্থান অধিকার করে ইন্টার পাস করেন তিনি। পরবর্তীতে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। 

কলেজ জীবন থেকেই তিনি ছাত্ররাজনীতিতে অংশ নিতে শুরু করেন। মুক্তিযুদ্ধের আগে ছয়দফা ও এগার দফা আন্দোলনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধতেও তিনি অংশ নিয়েছিলেন। 

রাজনৈতিক জীবনে একাধিকবার কারাবন্দী হয়েছেন তিনি। ১৯৭৫ সালের পর দীর্ঘ আড়াই বছর কারাবাসে ছিলেন ওবায়দুল কাদের। কারাগারে থাকা অবস্থাতেই তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নিযুক্ত হন। পরপর দুইবার তিনি ছাত্রলীগের সভাপতি হয়েছিলেন। 

দীর্ঘদিন ধরে তিনি লেখালেখি ও সাংবাদিকতার সাথেও যুক্ত। দৈনিক বাংলার বাণী পত্রিকার সহকারী সম্পাদক হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি। রচনা করেছেন মোট আটটি গ্রন্থ। 

. এ বিজয়ের মুকুট কোথায়? 

. পাকিস্তানের কারাগারে বঙ্গবন্ধু 

. বাংলাদেশের হৃদয় হতে

. তিন সমুদ্রের দেশে

. বাংলাদেশ: আ রেভুলোশন বিট্রেয়েড

. মেঘে মেঘে অনেক বেলা

. কারাগারে লেখা অনুস্মৃতি 

. যে কথা বলা হয়নি

১৯৯৬ সালের জুন মাসের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি নোয়াখালী ৫ আসন থেকে মনোনয়ন পেয়ে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এছাড়াও তিনি যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রনালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন। ২০০৭ সালে গ্রেফতার হন তিনি এবং প্রায় ১৮ মাসের কারাবরণ করেন। ২০০৮ সালে পুনরায় নোয়াখালী ৫ আসন হতে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০০৯ সালের আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে তিনি প্রেসিডিয়াম সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১১ সালে তিনি বঙ্গভবনে মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। ২০১২ সালে তিনি যোগাযোগ ও রেল মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বে ছিলেন। ২০১৪ সালে তৃতীয়বারের মত নোয়াখালী ৫ আসন থেকে মনোনয়ন পেয়ে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবার ও আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন।

তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও 

তিনি ভারত, মালয়েশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত, পাকিস্তান, আমেরিকা, ব্রিটেন, দক্ষিণ আফ্রিকা, চীন, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, ইটালি, তুরস্ক, শ্রীলংকা প্রভৃতি দেশ ভ্রমণ করেছেন।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button